আগামী ২৫/০৮/২০১৭ইং তারিখ রোজ শুক্রবার সকাল ১০ ঘটিকায় সহকারী ক্যাশীয়ার পদে অনুষ্ঠিতব্য লিখিত পরীক্ষা অনিবার্য্য কারণ বশত বিকাল ৩ ঘটিকায় অনুষ্ঠিত হইবে। ---::--- বিদ্যুতের অপচয় রোধ করুন ---::--- অপ্রয়োজনীয় বাতি ও ফ্যান বন্ধ রাখুন ---::--- বিকাল ৫টা হতে রাত ১১টা পর্যন্ত শিল্প কারখানা বন্ধ রাখুন ---::--- অবৈধ বিদ্যুৎ ব্যবহারকারীদের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হয়ে সামাজিক প্রতিরোধ গড়ে তুলুন


সতর্কবাণী

০১। বিদ্যুৎ পরিবাহী তারের খুঁটি অথবা তারে কখনো হাত দিবেন না এবং কাপড় শুকাতে দিবেন না। এতে যে কোন সময় বিপদ হতে পারে।
০২। কৌতুহল বশতঃ লাইনে কখনো কোন তারের উপরে পাটের কোষ্টা, রশি অথবা এই জাতীয় কোন কিছু ছুড়ে মারবেন না। এতে যে কোন ধরণের বৈদ্যুতিক দূর্ঘটনা ঘটতে পারে এবং আপনার বড় ধরণের ক্ষতি হতে পারে।
০৩। ভিজা হাতে অথবা খালি পায়ে কখনো সুইচে হাত দিবেন না। সকেটের ভিতর কোন তার বা আলপিন ঢোকাবের না। সকেট পয়েন্টের সাথে সুইচ ব্যবহার করিবেন।
০৪। সুইচ অন করা অবস্থায় কখনো হোল্ডারে বাল্ব লাগানো অথবা বাল্ব খোলার চেষ্টা করবেন না।
০৫। বৈদ্যুতিক দূর্ঘটনা জনিত অগ্নিকান্ডে কখনো পানে দেবেন না। প্রথমে মেইন সুইচ বন্ধ করুন এবং অগ্নিকান্ডের স্থানে বালি ছিটিয়ে দিন।
০৬। বিদ্যুতায়িত পুকুরে নামবেন না, যা অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ এবং এ ক্ষেত্রে তাৎক্ষনিক জীবন হানির সম্ভাবনা থাকে এ ক্ষেত্রে সমিতির নিকটস্থ অভিযোগ কেন্দ্রে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ করার জন্য সংবাদ দিবেন।
০৭। বাড়ীতে হিটার ব্যবহার ঝুঁকিপূণ এবং হিটারের দুধ জ্বালানো আরো ঝুঁকিপূর্ণ। ফলে হিটার ব্যবহার হতে বিরত থাকুন এবং অন্যকে বিরত থাকুন।
০৮। কোন ব্যক্তি বা অন্য কোন প্রাণী বৈদ্যুতিক তারে জড়িয়ে গেলে তাকে স্পর্শ করবেন না, কারণ তাতে আপনারও বিপদ হতে পারে। এমতাবস্থায়, প্রথমতঃ কাছাকাছি মেইন সুইচ থাকলে অফ করে দিন। দ্বিতীয়তঃ মেইন সুইচ না থাকলে শুকনো কাঠ বা বাঁশ দিয়ে বৈদ্যুতিক সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে তাকে উদ্ধার করুন।
০৯। বৈদ্যুতিক শক প্রাপ্ত ব্যক্তিকে প্রথমে দেখুন তার শ্বাস স্বাভাবিক চলছে কিনা, তা না হলে মুখে মুখ লাগিয়ে অথবা বুকে চাপ প্রয়োগ করে শ্বাস প্রশ্বাস স্বাভাবিক অবস্থায় আনার চেষ্টা করুন এবং সাথে সাথে স্থানীয় স্বাস্থ্য কেন্দ্রে যোগাযোগ করুন।
১০। বিদ্যুৎ প্রবাহিত তার ছিন্ন অবস্থায় দেখলে কখনো সেই তারে হাত দিবেন না বা অন্যকে হাত দিতে দিবেন না। সঙ্গে সঙ্গে সমিতিতে খবর দিন এবং যতক্ষণ সমিতির লোক মেরামতের জন্য সেখানে না পৌঁছায় ততক্ষণ পাহারার ব্যবস্থা করুন।
১১। বৈদ্যুতিক খুঁটি অথবা টানা তার সংলগ্ন মাটি কেটে উঠাবেন না। তাতে খুঁটি হেলে পড়ে দূর্ঘটনা ঘটতে পারে।
১২। বৈদ্যুতিক বিতরন লাইনে কোন ঘাচ/গাছের ডাল/বাঁশ জাতে স্পর্শ না করে সেই দিকে খেয়ার রাখুন এবং স্পর্শ করার আগে কাটার ব্যবস্থা করুন এবং প্রয়োজনে সমিতির সাহায্য নিন।
১৩। বৈদ্যুতিক লাইনের আশে পাশে গাছপালা কাটলে যদি তারের উপর পড়ার সম্ভাবনা থাকে তরে সেই গাছপালা কাটার আগে সমিতিতে খবর দিন। ইহাতে সমিতির লাইন ও ট্রান্সফরমার ক্ষয়ক্ষতির হাত হতে রক্ষা পারে এবং আপনিও অযথা জীবন হানির ঝুঁকি এড়াতে পারবেন।
১৪। বিদ্যুৎ লাইনের পাশে টিভি এন্টিনা স্থাপন কিংবা টিউবওয়েলের পাইপ পোতা অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ। অসতর্কতাবশতঃ বিদ্যুৎ লাইনের উপর এগুলি পড়ে বা সংযুক্ত হয়ে আপনার জীবন হানি ঘটতে পারে।
১৫। কখনো গুনা তার বিদ্যুতায়িত করে মাছের ঘের, আখের ক্ষেত, বাড়ীর মুরগীর খামার, কবুতরের বক্স ইত্যাদি রাতে পাহারা দেবার ব্যবস্থা করবেন না। এটা অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ। এই তার থেকে যখন তখন আপনার বা আপনার পরিবারের কোন সদস্যের জীবনহানি ঘটতে পারে।
১৬। বৈদ্যুতিক খুঁটির টানা তার অথবা আর্থিং তারে কখনো বিদ্যুৎ প্রবাহিত হতে পারে। তাই বৈদ্যুতিক খুঁটি অথবা খুঁটির টানা তারে গরু ছাগল বাঁধবেন না। এছাড়া সর্বদা তারের সংস্পর্শে এড়িয়ে চলবেন।
১৭। বৈদ্যুতিক তারের পাশে কখনো ঘুড়ি উড়াবেন না এবং কাউকে উড়াতে দিবেন না।
১৮। কোন অবস্থাতেই ঝুলন্ত ফ্লেক্সিবল অথবা নীচু মানের তার ব্যবহার করবেন না। তাতে আপনার বিপদ ঘটতে পারে।
১৯। বৈদ্যুতিক লাইনের ক্ষতি হতে পারে এমনভাবে লাইনের নীচে বসত বাড়ী বা অন্য কিছু স্থাপন করবেন না।
২০। আপনি সংযোগ পাওয়ার পর কোন প্রকার পার্শ্ব সংযোগ মারফত অন্যকে বিদ্যুৎ দিয়ে সাহায্য করার চেষ্টা করবেন না। কারণ পার্শ্ব সংযোগ প্রদান অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ এতে জানমালের ক্ষয়ক্ষতি হতে পারে। এ ক্ষেত্রে সার্বক্ষণিক সতর্কতা অবলম্বন করুন।
২১। মেইন সুইচে সঠিক মানের ফিউজ ব্যবহার করবেন। মেইন সুইচের ফিউজ জ্বলে গেলে প্রথমে মেইন সুইচ অফ করে সঠিক সাইজের ফিউজ বদলিয়ে নিন। এতে করে ত্র“টিমুক্ত না হলে প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত গ্রাম্য বিদ্যুৎ বিদদের সাহায্য নিন।